এক ম্যাচ হাতে রেখেই ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে সিরিজ জয়

Musaddik Mitu
  • প্রকাশিত সময় : শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী, ২০২১
  • শেয়ার করুন

  • Facebook

৩ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে হোম অফ ক্রিকেট মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলপতি জেসন মোহাম্মদ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ব্যাট হাতে ইনিংসের উদ্ভোদন করতে ক্রিজে আসেন সুনিল এম্ব্রিস ও কেজম ওটলি। ওপেনিং জুটিতে তারা যোগ করতে সক্ষম হোন মাত্র ১০ রান! ব্যাক্তিগত ৬ রানে মুস্তাফিজুর রহমানের প্রথম শিকার হয়ে সুনিল আম্ব্রিস সাজঘরে ফিরে গেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের প্রথম উইকেটটি হারায়।

এম্ব্রিসের পর ব্যাট করতে ক্রিজে আসেন জোসয়া ডি সিলভা! দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে সিলভা-ওটলি দেখে শুনে ব্যাটিং করলেও তাদের পার্টনারশিপে রান যোগ হয় মাত্র ২৬! ব্যাক্তিগত ৫ রানে মেহেদি হাসান মিরাজের প্রথম শিকার হয়ে কেজরন ওটলি সাজঘরে ফিরলে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে। ওটলির পর ক্রিজে আসেন আন্দ্রে ম্যাক্রেথি! ম্যাক্রেথি ক্রিজে আসার পরপরই নিজের উইকেটটি হারান জোসয়া ডি সিলভা। ব্যাক্তিগত ২৪ রানে মেহেদি হাসান মিরাজের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেন জোসয়া ডি সিলভা।

সিলভার পর ক্রিজে আসেন জেসন মোহাম্মদ! জেসন মোহাম্মদ ক্রিজে আসার পরপরই নিজের উইকেটটি হারান আন্দ্রে ম্যাক্রেথি! ব্যাক্তিগত ৩ রানে সাকিব আল হাসানের প্রথম শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেন আন্দ্রে ম্যাক্রেথি! ম্যাক্রেথির পর ক্রিজে আসেন কাইল মায়ার্স! নামের পাশে কোনো রান না যোগ করেই রান আউটের ফাদে পড়ে সাজঘরে ফিরে যান কাইল মায়ার্স।

মায়ার্সের পরে ক্রিজে আসেন এনক্রোমাহ বন্নার! ৬ষ্ট উইকেট জুটিতে জেসন-বন্নার গড়েন ২৬ রানের পার্টনারশিপ! ব্যাক্তিগত ১১ রানে সাকিব আল হাসানের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ। জেসনের পর ক্রিজে আসেন রোভম্যান পাওয়েল। পাওয়েল ক্রিজে আসার পরপরই নিজের উইকেট হারান এনক্রোমাহ বন্নার! ব্যাক্তিগত ২০ রানে হাসান মাহমুদের বলে সাজঘরে ফিরেন এনক্রোমাহ বন্নার।

বন্নারের পর ক্রিজে আসেন রেইমন রেইফার! নামের পাশে ২ রান যোগ করে মেহেদি হাসান মিরাজের তৃতীয় শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরেন রেইমন রেইফার। রেইফারের পর ক্রিজে আসেন আলজারি জোসেফ! পাওয়েল-জোসেফ মিলে ৯ম উইকেট জুটিতে গড়েন ৩২ রানের পার্টনারশিপ! ব্যক্তিগত ১৯ রানে মুস্তাফিজুর রহমানের দ্বিতীয় শিকার হয়ে আলজারিও জোসেফ সাজঘরে ফিরলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তাদের ৯ম উইকেটটি হারায়।

জোসেফের পর শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসেন আকিল হুসাইন! ১০ উইকেট জুটিতে পাওয়েল-আকিল যোগ করেন ২৮ রান! ব্যাক্তিগত ৪১ রানে রোভম্যান পাওয়েলকে সাজঘরে ফিরিয়ে ইনিংসে নিজের চতুর্থ উইকেট তুলে নেন মেহেদি হাসান মিরাজ।

শেষ পর্যন্ত ৪৩.৪ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৪৮ রান সংগ্রহ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ! ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ব্যাট হাতে রোভম্যান পাওয়েল ৪১(৬৫) রান, কেজম ওটলি ২৪(৪৪) রান ও এনক্রোমাহ বন্নার ২০(২৫) রান করেন। বাংলাদেশের পক্ষে বল হাতে মেহেদি হাসান মিরাজ ৪ উইকেট, মুস্তাফিজুর রহমান ও সাকিব আল হাসান ২টি করে উইকেট ও হাসান মাহমুদ ১টি উইকেট নেন।

১৪৯ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে ব্যাট হাতে ইনিংসের সূচনা করতে ক্রিজে আসেন লিটন দাস ও তামিম ইকবাল! ওপেনিং জুটিতে লিটন-তামিম যোগ করেন ৩০ রান! ব্যাক্তিগত ২২ রানে আকিল হুসাইনের বলে লিটন দাস সাজঘরে ফিরলে বাংলাদেশের প্রথম উইকেটের ওপর ঘটে।

লিটনের পর ক্রিজে আসেন নাজমুল হুসাইন শান্ত! দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তামিম-শান্ত মিলে যোগ করেন ৪৭ রানের পার্টনারশিপ। ব্যাক্তিগত ১৭ রানে জেসন মোহাম্মদের বলে নাজমুল হুসাইন শান্ত সাজঘরে ফিরলে বাংলাদেশ তাদের দ্বিতীয় উইকেটটি হারায়।শান্তের পর ক্রিজে আসেন সাকিব আল হাসান! তৃতীয় উইকেট জুটিতে তামিম-সাকিব স্কোরকার্ডে যোগ করেন ৩১ রান। ব্যাক্তিগত ৫০ রানে রেইমন রেইফারের বলে তামিম ইকবাল সাজঘরে ফিরলে বাংলাদেশের তৃতীয় উইকেটের পতন ঘটে।

তামিমের পর ক্রিজে আসেন মুশফিকুর রহিম। চতুর্থ উইকেট জুটিতে দুই অভিজ্ঞ ক্রিকেটার সাকিব-মুশফিক মিলে গড়েন অনবদ্য ম্যাচ উইনিং পার্টনারশিপ। সাকিব-মুশফিক দুইজনই অপরাজিত থেকে ম্যাচ শেষ করেন।

শেষ পর্যন্ত ৩৩.২ ওভারে জয়সূচক ১৪৯ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পক্ষে ব্যাট হাতে তামিম ইকবাল ৫০(৭৬) রান, সাকিব আল হাসান ৪৩(৫০)* রান ও লিটন দাস ২২(২৬) রান করেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে রেইমন রেইফার, জেসন মোহাম্মদ ও আকিল হুসাইন ১টি করে উইকেট নেন।

ফলাফলঃ- বাংলাদেশ ৭ উইকেটে বিজয়ী।
ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ- মেহেদি হাসান মিরাজ।

বাংলাদেশ একাদশঃ- লিটন, তামিম(ক্যাপ্টেন), শান্ত, সাকিব, মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ, সৌম্য, মিরাজ, রুবেল, মুস্তাফিজ, হাসান।

 

মন্তব্য করুন

এই বিভাগের আরো খবর