চতুর্থ দল হিসেবে প্লে-অফে বরিশাল

Musaddik Mitu
  • প্রকাশিত সময় : শনিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ১৮৮ ভিউ
  • শেয়ার করুন

হোম অফ ক্রিকেট মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজকের দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বেক্সিমকো ঢাকার দলপতি মুশফিকুর রহিম! বেক্সিমকো ঢাকার দলপতির কাছ থেকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ পেয়ে ফরচুন বরিশালের পক্ষে ব্যাট হাতে ইনিংসের উদ্ভোদন করতে ক্রিজে আসেন সাইফ হাসান ও ফরচুন বরিশালের দলপতি তামিম ইকবাল খান! ওপেনিং জুটিতে সাইফ-তামিম মিলে গড়েন ৫৯ রানের পার্টনারশিপ! ব্যাক্তিগত ১৯ রানে আল-আমিন হুসাইন জুনিয়রের বলে তামিম ইকবাল সাজঘরে ফিরে গেলে ফরচুন বরিশালের প্রথম উইকেটের পতন ঘটে! তামিমের পর ক্রিজে আসেন পারভেজ হুসাইন ইমন! ক্রিজে এসে ব্যাক্তিগত ১৩ রানে মুক্তার আলীর বলে সাজঘরে ফিরে যান পারভেজ হুসাইন ইমন! ইমনের পর ক্রিজে আসেন আফিফ হুসাইন ধ্রুব! ওপেনিংয়ে ব্যাটিং করতে নেমে ব্যাট হাতে ফিফটি তুলেন নেন সাইফ হাসান! ব্যাক্তিগত ৫০ রানে রুবেল হুসাইনের বলে সাইফ হাসান সাজঘরে ফিরলে ফরচুন বরিশালের তৃতীয় উইকেটের পতন ঘটে! সাইফের পর ক্রিজে আসেন তৌহিদ হৃদয়! শেষ দিকে ব্যাট হাতে বেক্সিমকো ঢাকার বোলারদের উপর তান্ডব চালান আফিফ হুসাইন ধ্রুব ও তৌহিদ হৃদয়! তৌহিদ হৃদয় ও আফিফ হুসাইন গড়েন ৯১ রানের দুর্দান্ত পার্টনারশিপ! ব্যাট হাতে আফিফ-হৃদয় দুইজনই ফিফটি করেছেন! শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রান সংগ্রহ করে ফরচুন বরিশাল! ফরচুন বরিশালের পক্ষে ব্যাট হাতে তৌহিদ হৃদয় ৫১(২২)* রান, আফিফ হুসাইন ধ্রুব ৫০(২৫)* রান ও সাইফ হাসান ৫০(৪৩) রান করেন! বেক্সিমকো ঢাকার পক্ষে বল হাতে আল-আমিন হুসাইন জুনিয়র, রুবেল হুসাইন ও মুক্তার আলী ১টি করে উইকেট নেন।

১৯৪ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বেক্সিমকো ঢাকার পক্ষে ব্যাট হাতে ইনিংসের সূচনা করতে আসেন মোহাম্মদ নাইম শেখ ও সাব্বির রহমান রুম্মান! ওপেনিং জুটিতে সাব্বির-নাইম যোগ করেন ৫২ রান! ব্যাক্তিগত ১৯ রানে সোহরাওয়ার্দী শুভর প্রথম শিকার হয়ে সাব্বির রহমান প্যাভিলিয়নে ফিরলে বেক্সিমকো ঢাকার প্রথম উইকেটের পতন ঘটে। সাব্বিরের পর ক্রিজে আসেন বেক্সিমকো ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম! ক্রিজে এসে ব্যাক্তিগত ৫ রানে সোহরাওয়ার্দী শুভর দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম! মুশফিকের পর ক্রিজে আসেন আল-আমিন হুসাইন জুনিয়র! মুশফিকের পরপরই ব্যাক্তিগত শূন্য রানে সোহরাওয়ার্দী শুভর তৃতীয় শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান আল-আমিন হুসাইন জুনিয়র। আল-আমিনের পর ক্রিজে আসেন ইয়াসির আলী রাব্বি! চতুর্থ উইকেট জুটিতে নাইম-রাব্বি গড়েন ১১০ রানের বিশাল পার্টনারশিপ! ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নেমে ব্যাট হাতে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন মোহাম্মদ নাইম শেখ! ব্যাক্তিগত ১০৫ রানে সুমন খানের বলে নাইম শেখ সাজঘরে ফিরলে বেক্সিমকো ঢাকার চতুর্থ উইকেটের পতন ঘটে! নাইমের পর ক্রিজে আসেন মুক্তার আলী! মুক্তার আসার পর ব্যাক্তিগত ৪১ রানে রান আউটের ফাদে পড়ে সাজঘরে ফিরে যান ইয়াসির আলী রাব্বি! রাব্বির পর ক্রিজে আসেন আকবর আলী! আকবর আসার পর প্রথম বলে ছক্কা হাকিয়ে দ্বিতীয় বলে ব্যাক্তিগত ৬ রানে কামরুল ইসলাম রাব্বির বলে সাজঘরে ফিরেন মুক্তার আলী! মুক্তারের পর ক্রিজে আসেন রবিউল ইসলাম রবি! শেষ বলে আকবর আলী ছক্কা হাকালেও ২ রানের হার মানতে হয় বেক্সিমকো ঢাকাকে। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৯১ রান সংগ্রহ করে বেক্সিমকো ঢাকা! বেক্সিমকো ঢাকার পক্ষে ব্যাট হাতে নাইম শেখ ১০৫(৬৪) রান, ইয়াসির আলী ৪১(২৮) রান ও সাব্বির রহমান ১৯(১১) রান করেন। ফরচুন বরিশালের পক্ষে বল হাতে সোহরাওয়ার্দী শুভ ৩ উইকেট, কামরুল ইসলাম রাব্বি ও সুমন খান ১টি করে উইকেট নেন।

ম্যান অফ দ্যা ম্যাচঃ নাইম শেখ।

 

মন্তব্য করুন

এই বিভাগের আরো খবর