Cricketkhor

"ডাল ভাতের সাথে ক্রিকেট খাই,
টাইগারদের জন্য গলা ফাটাই"

টেস্ট সিরিজে স্বাগতিকদের বাংলাওয়াশ করলো অ১৬ যুবারা !

Sayem

Sayem

আসামে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে স্বাগতিকদের হোয়াইটওয়াশ করেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ দল। প্রথম ম্যাচ দশ উইকেটে জেতার পর আজ দ্বিতীয় ম্যাচে তারা জিতেছে ইনিংস এবং ২৪৪ রানের ব্যবধানে!

দ্বিতীয় ম্যাচে বাংলাদেশের হয়ে শতক হাঁকিয়েছেন জাওয়াদ আবরার ও হাসানুর জামান তূর্য। পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ফারহান শাহরিয়ার।

জাওয়াদ আবরার

বুধবার আমিনগাঁও ক্রিকেট গ্রাউন্ডে টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় স্বাগতিকেরা। ৩ পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে উভয় দল।
দুই ওপেনার বাংলাদেশকে এনে দেন দারুণ শুরু। বিনা উইকেটে শতরান পার করে ফেলে তারা। ১২০ রানের মাথায় ওপেনার মুবিন আহমেদ দিশান ২২ রানে আউট হলে প্রথম উইকেটের পতন ঘটে। এরপর দ্রতই দুই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। চতুর্থ উইকেটে কালাম সিদ্দিকী অলিন এর সাথে ৬৩ রানের জুটি গড়েন জাওয়াদ আবরার। এই জুটিতে জাওয়াদ তুলে নেন সিরিজের প্রথম শতক। ১৩৯ রানে আউট হওয়ার আগে ৫ ছক্কা ও ১৮ চারে ঝলমলে ইনিংস খেলেন জাওয়াদ। এরপর হাসানুর জামান ও কালাম সিদ্দিকী জুটিতে প্রথম দিন ৩৭২-৪ এ শেষ করে বাংলাদেশ।
এদিন শেষ ওভারে মারকুটে ব্যাটিংয়ে শতক তুলে নেন হাসানুর। দ্বিতীয় দিনে ৭২ রানে কালাম ফিরলে ১৭০ রানের জুটির ইতি ঘটে৷ কিছুক্ষণ পর বিদায় নেন হাসানুরও, ৭ ছক্কা ও ১৪ চারে ১১৪ রান করেন তিনি। ৪৩১-৮ এ ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। আসামের হয়ে দ্যুতিময় ৪ ও একলব্য ৩ উইকেট নেন।

অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল আসাম ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অ১৬ এর বিপক্ষে প্রথম ম্যাচের মতো এবারও বোলিং তান্ডব চালায় বিসিবি অ১৬ দলের বোলাররা। শিহাব, ফারহান, রাতুলরা রীতিমতো ছেলেখেলা করলো আসামের ব্যাটারদের নিয়ে!

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৪৩১ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ম্যাচের মতো ধ্বসে পড়ে স্বাগতিকদের ব্যাটিং। ২৫ রানে পাঁচ উইকেট হারানো আসাম অল আউট হয় মাত্র ৬৮ রানে, প্রথম ইনিংসে ৩৬৩ রানের বিশাল লিড পায় বাংলাদেশ। দ্যুতিময় (২০) ছাড়া কেউই এক অঙ্ক পেরুতে পারেননি। সানজিত, ফাহাদ, ফারহান ২টি এবং শিহাব ৩ উইকেট নেন।

ফলো-অনে পড়ে এবার রয়েসয়ে খেলার চেষ্টা করে আসাম। তবে ২০ রানে দুই ওপেনারকে সাজঘরে ফেরান শিহাব।। ফারহান শাহরিয়ারের ৪ উইকেটে ৫১-৬ এ দ্বিতীয় দিন শেষ করা আসাম শেষদিনে ঘন্টাখানেক টিকে থাকতে পারে। ৩৮ এ দুটো, ৪৭ এ দুটো, ৭৭ এ দুটো এভাবে তিন জোড়া উইকেট হারায় তারা। তৃতীয় সকালের শুরুতেই সামিউন বশির রাতুল তিনটি উইকেট নেন। সিরিজে স্বাগতিকদের হয়ে একমাত্র ফিফটি হাঁকান বরুণজ্যোতি মালাকার, তার ১৫৮ বলের ইনিংস বাংলাদেশের জয়ের অপেক্ষা দীর্ঘায়িত করে শুধু। মোহিত ঠাকুরকে বোল্ড করে ম্যাচের ইতি ঘটান ফারহান শাহরিয়ার। নিজের পাঁচ উইকেট এবং দলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি। ১১৯ রানে আসাম অল আউট হলে বাংলাদেশ জয় পায় ইনিংস এবং ২৪৪ রানের বিশাল ব্যবধানে।

ফারহান শাহরীয়ার মাহী

ম্যাচে ২৮-১২-৩৯-৭ বোলিং ফিগার নিয়ে ম্যাচসেরা নির্বাচিত হন ফারহান শাহরিয়ার।

দুই ম্যাচের দুই ইনিংসে মারকুটে ব্যাটিং করা হাসানুর জামান ১৪৫ স্ট্রাইক রেটে ১৭৬ রান করে সিরিজসেরা ব্যাটার। দুই ম্যাচে ১১ উইকেট নিয়ে সাইখ ইমতিয়াজ শিহাব সেরা বোলার।

সফরে দুই টেস্ট শেষে এবার তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে উভয় দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোরবোর্ড–
প্রথম ইনিংসঃ
বাংলাদেশ অ১৬ ৪৩১-৮ ডিক্লেয়ার
জাওয়াদ আবরার ১৩৯, হাসানুর জামান ১১৪, কালাম সিদ্দিকী ৭২, মুবিন ২২, শিহাব ১৮, রাতুল ১৭, দেবাশীষ ১০, ফারহান ৬*, আবদুল্লাহ ০; দ্যুতিময় ১৫৭/৪, একলব্য ৬৭/৩ |

আসাম অ১৬ ৬৮/১০
দ্যুতিময় ২০, বরুণজ্যোতি ৯, বিজয় ৮, মাধুর্য্য ৭;
শিহাব ১৩.৪-৭-২২-৩, সানজিত ৮-২-১২-২, ফাহাদ ৭-৪-১৫-২, ফারহান ৯-৫-৯-২, রাতুল ৪-৩-১-০।

দ্বিতীয় ইনিংসঃ
আসাম অ১৬ ১১৯/১০ ফলো-অন
বরুণজ্যোতি ৫১*, বিজয় ২১, ভিক্টর ১৪;
ফারহান ১৯-৭-৩০-৫, রাতুল ১৮-৭-৩৫-৩, শিহাব ৬-২-৬-২, ফাহাদ ৮-২-২৩-০, সানজিত ৪-১-১১-০, দেবাশীষ ৩-১-৫-০, হাসানুর ১-১-০-০।