Cricketkhor

"ডাল ভাতের সাথে ক্রিকেট খাই,
টাইগারদের জন্য গলা ফাটাই"

দ্বিতীয় রাউন্ডে জমলো বিকেলের ম্যাচ, জ্যোতির ফিফটি

Sayem

Sayem

সিলেটে নারীদের জাতীয় ক্রিকেট লীগ এর দ্বিতীয় দিনে দ্বিতীয় রাউন্ডে সালমা খাতুন, লতা মন্ডল, রুমানা আহমেদ ও নিগার সুলতানা জ্যোতির দল জয় পেয়েছে। হারের বৃত্তে রইলো জাহানারা আলম, সোবহানা মোস্তারি ও রিতু মনির দল।

সকালের দুই ম্যাচই মিমাংসা হয়েছে শেষ ওভারে। রংপুর সহজ জয় পেলেও রাজশাহী পেয়েছে কষ্টার্জিত জয়। বিকেলে উভয় ম্যাচেই পেরিয়েছে শতরান৷ জ্যোতির দল রান তাড়া করে জিতলেও জাহানারার দল স্বল্প ব্যবধানে হারের মুখ দেখেছে।
প্রথমদিনে বারোটির পর এদিন রান আউট দেখা গেছে ১৫টি!

ঢাকা বিভাগ – রংপুর বিভাগ
সিলেটের মূল মাঠে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা ঢাকার দুই ব্যাটার এক অঙ্কের ঘর পার করতে পারেন। পিংকি এদিনও রান আউট হলেও রিতু মনির অপরাজিত ৩৮ রানের ইনিংসের সুবাদে ৯০ পর্যন্ত যায় তাদের ইনিংস। নবম উইকেটে রুপা রায়ের সাথে তিনি ২৬ যোগ করেন। এর আগে ওপেনার একা মল্লিক ১৭ রান করেন। জেসি দুই উইকেট দখল করেন।

মুর্শিদা খাতুন হ্যাপি

জবাবে এদিনও রংপুরের ওপেনাররা পঞ্চাশোর্ধ জুটি গড়েন। সাথী ২৭ রানে ফিরলে তিনে এসে সালমা করেন ৩ রান। এরপর আর কোনো উইকেট না হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দলটি। ৮ উইকেটের জয়ে ৪১* রান করে ম্যাচসেরা হন মুর্শিদা খাতুন হ্যাপি।

ঢাকা ৯০/৮(২০)
রিতু ৩৮, একা ১৭, রুপা ৯, পিংকি ৯;
জেসি ১৬-২, তৃষ্ণা ১২-১, ফারজানা ইয়াসমিন ১৭-১।
রংপুর ৯১/২(১৯.১)
মুর্শিদা ৪১, সাথী ২৭, তাজিয়া ১২;
মুমতাহেনা ১৩-১|

সিলেট বিভাগ – রাজশাহী বিভাগ
আউটার গ্রাউন্ডে টপ অর্ডারের ধীরগতির শুরতে মাঝারি পুঁজি নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় স্বাগতিকদের। শামিমা ৪৪ বলে ২৫ ও দিপা ২৯ বলে ১৪ করার পর শেষভাগে ফাহিমা, মারুফা ও আশরাফি ইয়াসমিনের কার্যকরী ছোটো ইনিংসে ৯২ করে সিলেট। ছয় বোলার একটি করে উইকেট নেন।

ফারজানা আক্তার লিসা

জবাবে টপ অর্ডারে ফারজানা লিসা ৩১ ও আসিমা ইরা ১৩ করেন। তাদের পতনের পরই ভেঙে পড়ে রাজশাহীর ইনিংস। দুই উইকেট পঞ্চাশ পার করা দলটি এরপর নিয়মিত বিরতিতে আরো ছয়টি উইকেট হারায়! তবে শেষদিকে ফেরদৌসীর দুই অংকের সংগ্রহ এবং জুনিয়র আয়েশার অপরাজিত ১৮ রানের সুবাদে শেষ ওভারে দুই উইকেটের কষ্টার্জিত জয় পায় দলটি। মারুফা ও ইমু দুটো করে উইকেট নেন। ৩১ রান করে ম্যাচসেরা হন ফারজানা আক্তার লিসা।

সিলেট ৯২/৬(২০)
শামিমা ২৫, দিপা ১৪, ফাহিমা ১৫, আশরাফি ১২, মারুফা ১২; পুজা ৬-১, লতা ১২-১, সোমা ১৫-১, নাহিদা ৩৩-১, ফেরদৌসী ৮-১, বৃষ্টি ৫-১।

রাজশাহী ৯৫/৮(১৯.৪) লিসা ৩১, আয়েশা ১৮, আসিমা ১৩, ফেরদৌসী ১১;
মারুফা ১৬-২, লাবনী ১০-১, ইমু ২২-২|

খুলনা বিভাগ – ময়মনসিংহ বিভাগ
বিকেলের ম্যাচে টুর্নামেন্টে প্রথম শতরানের ইনিংস দেখা মেলে। আগে ব্যাট করে খুলনা চার ব্যাটারের মাঝারি ইনিংসে ১০০ পার করে। আগেরদিন ম্যাচসেরা হওয়া ক্যাপ্টেন রুমানা এদিন গোল্ডেন ডাক পান। ব্যাটাররা ছোট ছোট ইনিংসে এগুলেও নিয়মিত বিরতিতে আঘাত হানেন সানজিদা মেঘলা, চার ওভারে চারটি উইকেট নেন তিনি।

জবাবে দুই ওপেনার ভালো জুটি গড়লেও দুজনেই স্লো খেলেন। ৫৬ রানে দলটির তৃতীয় উইকেট গেলেও ততক্ষণে ব্যাটাররা অনেক ওভার খেলে ফেলেছিলেন। শেষ ৬ ওভারে প্রয়োজন পড়ে ৫১ রানের, শেষ ৩ ওভারে সেটা গিয়ে ঠেকে ১৮ বলে ৪৪ রানে! তখন দিলারা দোলা ও রিয়া আক্তার শিখা দেড়শোর বেশী স্ট্রাইক রেটে ব্যাট চালিয়েও দলকে আর জেতাতে পারেননি। ৯ রানে হারের স্বাদ পায় জাহানারার ময়মনসিংহ। ৩-১-১৩-২ বোলিং ফিগারে ম্যাচসেরা পুরষ্কার বাগিয়ে নেন ফাহমিদা ছোয়া।

খুলনা ১০৮/৭(২০)
শম্পা ১৬, ফাতেমা ১৭, সোহেলি ২০, তাজ ২১; মেঘলা ৮-৪, জাহানারা ১২-১, আশা ২২-১।

ময়মনসিংহ ৯৯/৫(২০) শারমিন সুলতানা ২৩, সাদিয়া ১৭, সুমাইয়া ১১, দোলা ১৯*, শিখা ১৮*;
শরিফা ১৭-২, ফাহমিদা ১৩-২|

চট্টগ্রাম বিভাগ – বরিশাল বিভাগ
একাডেমি মাঠে শেষ বিকেলে জমে ওঠে হাই স্কোরিং ম্যাচটি। দুই দলের অধিনায়কই বড় ইনিংস খেলেন।
আগে ব্যাট করা চট্টগ্রামের দুই ওপেনার ৮ ওভারে ৫৭ তুলে ফেলেন। দুই ওপেনারই ২৭ রান করে আউট হন। তিনে নামা মোস্তারি ৪ চার ও এক ছক্কায় ১৩৮ স্ট্রাইক রেটের ইনিংস দিয়ে দলকে সম্মানজনক পুঁজি এনে দেন, টুর্নামেন্ট সর্বোচ্চ ১১৭ জমা হয় তাদের স্কোরবোর্ডে। চার বোলার চারটি উইকেট শিকার করেন।

জবাবে প্রতিপক্ষের দুই ওপেনার তুলনামূলক ধীরগতির শুরু করেন। সুপ্তা ৬ ও নাজনিন ১৮ করেন। তিনে নামা নিগার সুলতানা জ্যোতি একপ্রান্ত আগলে রাখেন। ছোট ছোট জুটিতে দলকে এগিয়ে নিতে থাকেন তিনি। শেষ ৫ ওভারে ৪৪ রানের প্রয়োজন হলে হাত খুলে খেলেন জ্যোতি। টুর্নামেন্টের প্রথম ফিফটি তুলে নেন তিনি। ছয় উইকেট হারানো বরিশাল দল জয় পায় এক বল হাতে রেখে। শেষ ৮ বলে ২১ রান তোলা জ্যোতি ৭ চার ও এক ছক্কায় ৬৩* রানে অপরাজিত থাকেন। অনুমিতভাবেই ম্যাচসেরা পুরষ্কারটি তার নামে যায়।

চট্টগ্রাম ১১৭/৫(২০)
আফিয়া ২৭, ইভা ২৭, সোবহানা ৪৩, সুমনা ১২;
ফুয়ারা ১৭-১, রাবেয়া ২৪-১, সুলতানা ৮-১, নাজনিন ৫-১।
বরিশাল ১১৮/৬(১৯.৫)
নাজনিন ১৮, জ্যোতি ৬৩*, শারমিন আক্তার ১২;
অপর্ণা ২৫-১, মেহেরুন ১১-১ |

প্রথম দুই রাউন্ডে রংপুর, রাজশাহী ও খুলনা উভয় ম্যাচ জিতেছে। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ময়মনসিংহ হেরেছে দুই ম্যাচই। সিলেট আর বরিশাল সমান হারজিত নিয়ে আছে মাঝামাঝি অবস্থানে।
একদিন বিরতি দিয়ে তৃতীয় রাউন্ড খেলা হবে পরশু।