Cricketkhor

"ডাল ভাতের সাথে ক্রিকেট খাই,
টাইগারদের জন্য গলা ফাটাই"

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের পুনর্জন্ম!

Arfin Rupok

Arfin Rupok

যেই দল একটা সময় বাইশ গজে লড়েছিলো দাপটের সাথে, বিশ্বমঞ্চে জায়গা করে নিয়েছিলো সুপার সিক্সে সেই দলটিই কি-না হারিয়ে যেতে বসেছিলো রাজনৈতিক অস্থিরতা, দুর্নীতি কিংবা প্রশাসনিক বিশৃঙ্খলার ভীড়ে! হারিয়ে গিয়েও যে ফিরে আসা যায় সেটিই বোধহয় হৃদয়ে লালন করেছিলো রাজা, মুজারাবানিরা। এবং তারা পেরেছে, পেরেছে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে নতুন করে স্বপ্ন দেখাতে।

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের গল্পে লুকিয়ে আছে হাজারো স্মৃতি, যেখানে ডেভিড হটন, গাই হুইটল, অ্যালিস্টেয়ার ক্যাম্পবেল কিংবা এডো ব্রান্ডেস, হিথ স্ট্রিকরা রয়েছে রাজার বেশে; ছোট দলের বড় তারকার তকমা নিয়ে। এদের মাঝে দু’টি নাম তো বিশ্ব ক্রিকেট মনে রেখেছে আলাদা ভাবে, তারা হলেন অ্যান্ডি ও গ্রান্ট ফ্লাওয়ার।

জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট একটা সময় দাপটের সাথে লড়াই করেছে বাইশ গজে। ব্যাটে-বলের লড়াইয়ে যাঁরা বড় বড় দলগুলোর নাভিশ্বাস তুলে নিয়েছিলো, তাঁরাই দুই বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছিলো সুপার সিক্সে। কি সোনালী অতীত তাঁদের। অথচ এই দলটাই হারিয়ে যেতে বসেছিলো।

শুরুর গল্পে হটন, স্ট্রিক, ফ্লাওয়াররা সেরা হলে মাঝে দ্রুতি ছড়িয়েছেন মাসাকাদজা, তাইবু, চিগুম্বুরা, উতসেয়া, প্রাইস কিংবা চাতরারা। এদের হাত ধরে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট এগিয়েছে অনেকটা পথ। হোঁচট খেয়ে পিছনে পড়েছেন বারবার, তবুও তাদের দৃঢ় মনোবল জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটকে রেখেছিলো বাঁচিয়ে।

সময় গড়িয়েছে, ক্রিকেট পেয়েছে আধুনিকতার ছোঁয়া। যেখানে কি-না জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের সাড়া নেই। সর্বশেষ টি-২০ বিশ্বকাপে নামিবিয়া, ওমান জায়গা পেলেও জায়গা হয়নি জিম্বাবুয়ের। তাইতো তাসমান পাড়ের দেশে বিশ্বকাপ খেলতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলো রাজা, উইলিয়ামস, মুজারাবানিরা। বাইশ গজের লড়াইয়ে এবার রাজারা পেরেছে বিশ্বমঞ্চে জায়গা করে নিতে, সেটিও প্রায় অর্ধযুগ পর। জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের জন্য যেটি অনেক বড় পাওয়া।

সর্বশেষ টি-২০ বিশ্বকাপে জায়গা না পাওয়ার হতাশা ছিলো জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটে। হতাশা ছিলো তাদের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার রাজার মাঝেও। রাজা তো একটা সময় আইসিসির প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেই বসেন! এরমাঝে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট যেমন ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই করেছে তেমনি রাজাও লড়াই করেছে নিজের সাথে। এই লড়াইয়ে সেরা জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট, সেরা সিকান্দার রাজা।

সর্বশেষ পাঁচ বছরে মাত্র ১৮ টি টি-২০ ম্যাচে জয় পাওয়া জিম্বাবুয়ে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের মিশনে খেলতে নেমে হয়েছে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন! এই দলটি ঘরের মাঠে পাকিস্তানের মতো দলকে হারিয়ে মেতেছিলো উদযাপনে। দলটিতে রয়েছে রাজা, উইলিয়ামস, মুজারাবানি, জংওয়ের মতো কিছু গেইম চেঞ্জার। সবমিলিয়ে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জায়গা করে নিয়েছে, স্বপ্ন দেখছে নতুন করে সাফল্যের গল্প রচিত করার।